বেড়েছে নিত্যপণ্যের দাম,ভোজ্য তেলে আগুন, সংসার চালানো দায়

0

আব্দুল জব্বার স্টাফ রিপোর্টারঃপাবনায় সপ্তাহের ব্যবধানে বেড়েছে শাক-সবজি, মাছ, তেল, চিনিসহ বিভিন্ন নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম। মুরগির মাংসের দাম স্থিতিশিল থাকলেও গরুর মাংশের দাম কেজিতে ২০ টাকা ও খাসির মাংশের দাম কেজিতে ৫০ টাকা বেড়েছে।শুক্রবার পাবনার কাশিনাথপুর বাজার ঘুরে এসব চিত্র পাওয়া যায়। দিন দিন নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম বাড়ায় সাধারণ ক্রেতারা পড়েছে বিপাকে। বাড়ছে ক্রেতাদের মধ্যে ক্ষোভ।

সবজি বাজার ঘুরে জানা যায়, ফুলকপি বিক্রি হচ্ছে ৩৫ টাকা কেজি যা গত সপ্তাহের চাইতে ৫ টাকা বেশী, লাউ ৫ টাকা বেড়ে ৪০ টাকা পিস, বেগুন ৪০ টাকা কিজিতে বিক্রি হচ্ছে যা গত সপ্তাহে ছিলো ৩৫ টাকা কেজি, কাঁচা মরিচ সপ্তাহের ব্যবধানে কেজি ১০ টাকা বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকা কেজি, করলা কেজিতে ২০ টাকা বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ৮০ টাকা, পেঁয়াজ ৫ টাকা বেড়ে ৩৫ টাকা ও শসা কেজিতে ১৬ টাকা বেড়ে ৭০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে।

মাছের বাজারে ঘুরে দেখা যায়, বড় ইলিশ কেজিতে ২০০ টাকা বেড় ১৪শত টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে, ছোট ইলিশ গত সপ্তাহের মতই ৫০০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে, চিংড়ি মাছ বিক্রি হচ্ছে ১ হাজার টাকা কেজি যা গত সপ্তাহের চেয়ে ১শত টাকা বেশী, রুই মাছ কেজিতে ২০ টাকা বেড়ে ২৪০ টাকা কেজি, মিরকা কেজিতে ২০ টাকা বেড়ে ১৬০ টাকা, টেংরা মাছ কেজিতে ১শত টাকা বেড়ে ৬০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

বোতলজাত বিভিন্ন কোম্পানির পাঁচ লিটার সয়াবিন বিক্রি হচ্ছে ৮০০ টাকায় এছাড়াও খোলা সোয়াবিন তেল কেজিতে ২ টাকা বেড়ে ১৪৮ টাকা এবং চিনি কেজিতে ২ টাকা বেড়ে ৭৬ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে।

গরুর মাংশ কেজিতে ২০ টাকা বেড়ে ৬শত টাকা কেজি ও খাসির মাংস কেজিতে ৫০ টাকা বেড়ে ৯শত টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া ডিমের দামের কোন পরিবর্তন লক্ষ করা যায়নি। লাল ডিম বিক্রি হচ্ছে ৩৪ টাকা হালি, সাদা ডিম বিক্রি হচ্ছে ৩২ টাকা হালি।

এদিকে নিত্যপন্যের দাম বাড়ায় হতাশ সাধারণ মধ্যবৃও নিম্নবর্গের মানুষ। তারা বলছে এমন হলে সংসার চালানো দায়।

Share.

Leave A Reply